নড়াইলে জন্ম নিবন্ধনে অতিরিক্ত অর্থ আদায়ের অভিযোগ

0
13
নড়াইলে জন্ম নিবন্ধনে অতিরিক্ত অর্থ আদায়ের অভিযোগ
জন্ম নিবন্ধন

স্টাফ রিপোর্টার

নড়াইল সদর উপজেলার মুলিয়া ইউনিয়নে জন্ম নিবন্ধনের ভুল সংশোধন করতে অতিরিক্ত অর্থ আদায়ের অভিযোগ উঠেছে। ইউনিয়ন পর্যায়ে এমন অতিরিক্ত অর্থ দাবির কারণে বেকায়দায় পড়েছেন মুলিয়া ইউনিয়নের বাসিন্দারা। অভিযোগ উঠেছে সনদ দিতে সরকারি ফির চেয়েও অধিক টাকা নেয়া হচ্ছে। বেপরোয়া অর্থ আদায় ও ইচ্ছা করে সময় ক্ষেপনের কারণে সেবা নিতে আসা শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের মধ্যে ব্যাপক ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।
সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, জন্মনিবন্ধন করতে আসা ব্যক্তিদের কাগজপত্রাদি নিয়ে তা বিনা খরচে নিবন্ধন প্রক্রিয়া করে দেয়ার কথা। তবে কোথাও কোনো মেইল পাঠানো, প্রিন্ট কিংবা কম্পোজ প্রয়োজন হলে সামান্য টাকা সংশ্লিষ্টরা নিতে পারবেন। অথচ মুলিয়া ইউনিয়নে কর্মরত উদ্যোক্তা প্রশান্ত বিশ্বাসের নিকট জন্ম নিবন্ধন করতে কাগজাদি জমা নেয়ার সঙ্গে সঙ্গে টাকা দাবি করছেন। প্রতিটি জন্ম নিবন্ধনে নেয়া হচ্ছে ৩’শ থেকে ৫’শ টাকা। চাহিদা মত টাকা না দিলে সোজা ডিসি অফিস দেখিয়ে দেয়া হচ্ছে। এছাড়া সাফ বলে দেয়া হচ্ছে, এটা কবে দেবো ঠিক নেই। দুই মাস বা দুই বছরও লাগতে পারে। শর্তে রাজি থাকলে ৩’শ টাকাসহ কাগজপত্র দিয়ে যান। জানা যায়, জন্ম তারিখ সংশোধনের জন্য ১০০ টাকা ও জন্ম তারিখ ব্যতীত পিতার নাম, মাতার নাম, ঠিকানা ও অন্যান্য তথ্য সংশোধনের জন্য আবেদন ফি ৫০টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। এ ছাড়া সংশোধনের পর সনদের কপি বিনা টাকায় সরবরাহের কথাও বলা হয়েছে। তবে প্রশান্ত বিশ্বাস অতিরিক্ত টাকা নেয়ার কথা অস্বীকার করেছেন।

সেবা নিতে আসা ওই ইউনিয়নের শিল্পি কবিরাজ অভিযোগ করে বলেন, আমার সন্তান এবং আমার জন্ম সনদ সংশোধনের জন্য মুলিয়া ইউনিয়ন পরিষদে এসেছিলাম। ইংরেজি সংশোধনের জন্য তারা আমার কাছ থেকে ৬০০ টাকা নিয়েছে। এ ছাড়া বাবা-মায়ের নাম ও জন্ম তারিখের দুই জায়গায় ভুল থাকায় আরও ৩০০ টাকা নিয়েছে।

অনিয়মের বিষয় জানতে চাইলে মুলিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রবীন্দ্রনাথ অধিকারী বলেন, ‘আমি একেবারেই এ বিষয়টি জানি না। কেউ আমার নিকট অভিযোগও করেননি। তারপরও বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে। সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাদিয়া ইসলাম বলেন, এ বিষয়ে কোন অভিযোগ আসেনি। তদন্ত পূর্বক আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।