নড়াইলের তুলারামপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি ও প্রধান শিক্ষকের অপসারণ দাবিতে মানববন্ধন

0
53
নড়াইলের তুলারামপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি ও প্রধান শিক্ষকের অপসারণ দাবিতে মানববন্ধন
নড়াইলের তুলারামপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি ও প্রধান শিক্ষকের অপসারণ দাবিতে মানববন্ধন

ফরহাদ খান

নড়াইল সদর উপজেলার তুলারামপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি ও প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে নিয়োগ বাণিজ্যের অভিযোগে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। তুলারামপুর ইউনিয়নবাসীর আয়োজনে রোববার (১৫ মে) দুপুরে নড়াইল প্রেসক্লাবের সামনে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় বক্তব্য রাখেন-স্কুল ম্যানেজিং কমিটির অভিভাবক সদস্য খান আতাউর রহমান সুজন, আলাউদ্দিন বিশ্বাস, শিহাবুর রহমান শিহাবসহ অনেকে।

বক্তারা বলেন, তুলারামপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ইন্দ্রজিৎ মন্ডল ও সভাপতি ইমদাদুল ইসলামের যোগসাজশে দুর্নীতি ও অনিয়মের মাধ্যমে গত ২১ এপ্রিল কম্পিউটার ল্যাব অপারেটর ও অফিস সহায়ক পদে নিয়োগ পরীক্ষা হয়েছে। এ নিয়োগ বাতিল করে স্বচ্ছ ভাবে নিয়োগের দাবি করেন বক্তারা।

ম্যানেজিং কমিটির অভিভাবক সদস্য খান আতাউর রহমান সুজন বলেন, কম্পিউটার ল্যাব অপারেটর ও অফিস সহায়ক পদে নিয়োগের ব্যাপারে প্রধান শিক্ষক ইন্দ্রজিৎ মন্ডল আমাদের কোনো কিছুই অবগত করেননি। এমনকি রেজুলেশনের খালি খাতায় জোর করে স্বাক্ষর নেয়ার চেষ্টা করলে আমি তা করিনি। শুনেছি অফিস সহায়ক পদে ১২ লাখ এবং কম্পিউটার অপারেটর পদে ১৬ লাখ টাকা ঘুষ নেয়া হয়েছে। এ নিয়োগ বাতিল চাই।

অপর অভিভাবক সদস্য আলাউদ্দিন বিশ্বাস বলেন, স্কুলে সন্ত্রাসী এনে জোর করে খালি খাতায় স্বাক্ষর করে নিয়েছে। এ সংক্রান্ত খবর পত্রিকাসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচার করা হলে ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ইমদাদুল ইসলাম তা মুছে ফেলার জন্য আমাকে চাপ দেন। আমার নামে মামলা করারও হুমকি দেন।

শিহাবুর রহমান শিহাব বলেন, আমি তুলারামপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ছাত্র ছিলাম। স্কুলের অনিয়ম-দুর্নীতি প্রতিহত করে আমরা আদর্শ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান দেখতে চাই। এ ব্যাপারে প্রধান শিক্ষক ইন্দ্রজিৎ মন্ডল বলেন, আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করা হয়েছে। ঠিক নিয়মে নিয়োগ দেয়া হয়েছে।

ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ইমদাদুল ইসলাম বলেন, বিধিমোতাবেক স্বচ্ছ ভাবে নিয়োগ দেয়া হয়েছে। এসব অভিযোগ ঠিক নয়। জেলা শিক্ষা অফিসার এস এম ছায়েদুর রহমান বলেন, এ বিষয়ে অভিযোগ পেয়েছি। আগামিকাল (মঙ্গলবার) বিষয়টি তদন্ত করবো।