রো/গী চিকিৎসা করতে গিয়ে এক চিকিৎসক আহ/ত

20
7
শিশুর মৃ'ত্যু
নড়াইল সদর হাসপাতাল

স্টাফ রিপোর্টার

নড়াইল সদর হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার ডা. সুতপা সাহা ডিউটিরত অবস্থায় ছাদের পলেস্তারা খ/সে পড়ে তার মা/থা ফে/টে গিয়েছে। এ ঘটনায় তার মা/থায় ৪টি সে/লাই দেওয়া হয়েছে। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন তিনি এখন আশং/কামুক্ত। সোমবার (২১জুন) দুপুরে এ ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, সোমবার সাড়ে ১২টার দিকে তিনি ১১০ নম্বর কক্ষে গ্রাউন্ড ফ্লোরে তিনি আউটডোরের গা/ইনি রো/গি দেখছিলেন। হঠাৎ করে ছাদ থেকে এক খন্ড পলেস্তারা মা/থায় প/ড়ে ফেটে যায়। এ সময় তাকে দ্রু/ত অপা/রেশন থিয়েটারে নিয়ে চিকিৎসা প্রদান করা হয়। পরে তাকে ৭ নম্বর কেবিনে ভর্তি করা হয়। এ নিউজ লেখা পর্যন্ত তিনি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। ঘটনার সময় এক রো/গি চিকিৎসকের সামনে থাকলেও তার কোনো সমস্যা হয়নি।

এ ব্যাপারে সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. মশিউর রহমান বাবু বলেন, তার অবস্থা এখন আশং/কামুক্ত। তিনি আরও বলেন, হাসপাতালটি পুরো/নো হওয়ায় মাঝে মধ্যে পলেস্তারা খ/সে খ/সে পড়ে। বিষয়টি উধ্বর্তন কর্তৃপক্ষকেও বিভিন্ন সময় জানানো হয়েছে।

প্রসঙ্গত, নড়াইল সদর হ্সাপাতালটির বর্তমান ভবনটি ১৯৮৫ সালে নির্মিত হয়। নিম্নমানের কাজের কারণে ২০ বছর যেতে না যেতেই এ ভবনের পলেস্তারা খ/সে খ/সে পড়তে শুরু করে। হাসপাতাল কর্তপক্ষ জানান, মাঝে মধ্যেই হাসপাতালের বিভিন্ন কক্ষের ছাদের পলেস্তারা এভাবে খ/সে খসে পড়ে। তবে আহত হবার ঘটনা এবারই প্রথম ঘটলো।

20 COMMENTS

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here