অভাব-অনটনের কারণে স্কুল ছাড়লেও হাল ছাড়েননি হারুণ; হতে চান উকিল

4
6
অভাব-অনটনের কারণে স্কুল ছাড়লেও হাল ছাড়েনি হারুণ; হতে চান উকিল
অভাব-অনটনের কারণে স্কুল ছাড়লেও হাল ছাড়েননি হারুণ; হতে চান উকিল

হলি সিয়াম শ্রাবণ

অভাবের তাড়নায় স্কুল ছেড়ে আসা হারুণ মিয়া চা দোকানেও রেখেছে মেধার ছাপ। তাইতো তিনি সময়ে সময়ে মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য অর্ধেক দামে চা বিক্রি, সেরা চা গ্রাহককে সম্মাননা ও মা/দক বিরোধী প্রচারণায় নেমে প্রশংসা কুড়িয়েছেন। ব্যতিক্রমধর্মী এসব উদ্যোগের জন্য গৌরীপুর শহরে আলাদা পরিচিতিও পেয়েছে সে। পাশাপাশি চা বিক্রি করে তাঁর আয়ও ভালো।

তবে অভাবের তাড়নায় পড়াশোনা ছেড়ে দেয়ায় একটা আক্ষেপ ছিল হারুণের ভেতর। তবে তিনি হাল ছাড়েননি। চা বিক্রির পাশাপাশি পড়াশোনা করে চব্বিশ বছর বয়সে এসে এসএসসি পাশ করেছে। চলতি বছরের ১৫ ফেব্রুয়ারি উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এসএসসি পাশ করেছেন হারুণ।

হারুণের বাড়ি ময়মনসিংহের গৌরীপুর পৌর শহরের সতীষা গ্রামে। বাবা আব্দুল জব্বার পেশায় সবজি বিক্রেতা। মা রহিমা খাতুন গৃহিণী। ছয়-ভাই বোনের মধ্যে হারুণ পঞ্চম। এরমধ্যে চার ভাই-বোন বিয়ে করে আলাদা হয়েছে। পরিবারের অভাব-অনটনের কারণে ২০১০ সালে মাধ্যমিকে অধ্যয়নকালে পড়াশোনার ছাড়তে হয় তাকে। সংসারের হাল ধরতে ২০১৪ সালে পৌর শহরের কালীখলা এলাকায় চা দোকান খোলে সে। চা বিক্রির পাশাপাশি দোকানে বসে বিভিন্ন ধরণের বই পড়তো হারুণ। পড়ার প্রতি তার এই আগ্রহ দেখে শিক্ষক এমদাদুল হক, আব্দুল মালেক ও সাংবাদিক শফিকুল ইসলাম মিন্টুর অনুপ্রেরণাতে ২০১৯ সালে উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি হন হারুণ। চা বিক্রির পাশাপাশি রাতে পড়াশোনা করে এসএসসি পাশ করে সে। হারুণের ছোট বোন চলতি বছর এইচএসসি পাশ করেছেন। চা বিক্রি করে সংসারের হাল ধরার পাশাপাশি ছোট বোনের পড়াশোনার খরচও চালান।

উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের টিউটর আব্দুল মালেক বলেন, অষ্টম শ্রেণি পাশ করে ঝরে পড়া শিক্ষার্থীরা উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হয়ে পড়াশোনা করতে পারে। এক্ষেত্রে বয়সের কোন বাঁধা নেই। এই সুযোগের কারণেই হারুণ চব্বিশ বছর বয়সে এসে এসএসসি পাশ করেছেন। আমি তাঁর সর্বাঙ্গীণ সাফল্য কামনা করছি।

হারুণ মিয়া বলেন, “অভাবের তাড়নায় স্কুল ছাড়লেও আমি হাল ছাড়িনি। স্বপ্ন ছিল স্বাবলম্বী হয়ে ঘুড়ে দাঁড়াবো। এখন নিজের উপার্জনে পড়াশোনা করে এসএসসি পাশ করেছি। চা বিক্রির পাশাপাশি পড়াশোনা চালিয়ে যেতে চাই, হতে চাই উকিল।”