নড়াইলে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের দায়িত্বে থাকা ইউপি সদস্যের প্রণোদনা দুর্নীতি!

0
157
নড়াইলে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের দায়িত্বে থাকা ইউপি সদস্যের প্রণোদনা দুর্নীতি!
নড়াইলে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের দায়িত্বে থাকা ইউপি সদস্যের প্রণোদনা দুর্নীতি!

স্টাফ রিপোর্টার

নড়াইলের কালিয়া উপজেলার পেড়লী ইউনিয়নের মেম্বর শাহাজান শেখ ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পাওয়ার পর তার বিরুদ্ধে প্রণোদনা দুর্নীতির অভিযোগ ও প্রমাণ পাওয়া গিয়েছে। প্রকৃত অ*স্বচ্ছল পরিবারদের ব*ঞ্চিত করে ২ নং ওয়ার্ডের খড়রিয়া গ্রামের নিজ বংশের শেখ পরিবারেই ২০টি নাম মোবাইল নম্বর অন্তর্ভুক্ত করে প্রধানমন্ত্রীর প্রণোদনা নগদ ২৫০০/- টাকা পাওয়ার জন্য তালিকা দিয়েছেন। যার মধ্যে রয়েছে বিদেশ ফেরত ভাই আপন জামাই, ছেলে, বোন, ভাইপোসহ পরিবারের সদস্যরা। রয়েছে প্রভাবশালী বালি ও বাঁশ ব্যবসায়ী। এরইমধ্যে কেউ কেউ মোবাইলে টাকা ও পেয়েছেন বলে জানা যায়।

দুর্নীতি এড়াতে সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে অসহায় অসচ্ছল পরিবারের মাঝে নগদ ২৫০০ টাকা করে মোবাইল নম্বরের মাধ্যমে দেওয়ার ব্যবস্থা করেন। সেসব নাম তালিকা প্রদান করেন ইউপি চেয়ারম্যানরা। পেড়লী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ জারজিদ মোল্যাকে স্থানীয় সরকার বরখাস্ত করলে অত্র ইউনিয়নের ২ নং ওয়ার্ডের সদস্য মোঃ শাহাজান শেখ গত ০৩/০৫/২০২০ ইং তারিখে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পান। তখন সরকারী ভাবে সকল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের মাধ্যমে মোবাইলের সিম নম্বর সহ নাম তালিকা চাওয়া হয়। সেই সুযোগ কাজে লাগিয়ে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান মোঃ শাহাজান শেখ নিজের শেখ পরিবারের ২০ জনের নাম মোবাইল নম্বর অন্তর্ভুক্ত করে আলোচানায় এসেছেন। এ নিয়ে এলাকায় ব্যাপক আলোচনা সমালোচনার সৃষ্টি হয়েছে। প্রকৃত যারা অস্বচ্ছল পরিবার তাদের মধ্যে ক্ষো*ভের সৃষ্টি হয়েছে।

সরেজমিনে গিয়ে প্রণোদনার জন্য প্রেরিত ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের পরিবারের মোট ২০ জনের নাম মোবাইল নম্বর ও এনআইডির শুদ্ধতাপরীক্ষা বা ক্র’সচেক করে মিলিয়ে সত্যতার প্রমাণ মেলে। এগুলো তালিকাবদ্ধ করে সংবাদমাধ্যমে প্রেরণ করা হয়।

আপন ভাই ছেলে, জামাই, ভাইপোদের নামের সত্যতা স্বীকার করে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান মোঃ শাহাজান শেখ বলেন, কিছু নাম আমি দিয়েছি আর কিছু মহিলা মেম্বর দিয়েছে আর কিছু দল থেকে দিয়েছে। অন্যান্য প্রকৃত অ*স্বচ্ছল পরিবারদের ব*ঞ্চিত করার বিষয়ে জানতে চাইলে বলেন পরবর্তিতে ব্যবস্থা নেয়া হবে। এ বিষয়ে কালিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ নাজমুল হুদা বলেন, ফোনে অভিযোগ পেয়েছি লিখিত অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।